বেশ্যা-PROSTITUTE

মি বেশ্যা । কি অবাক হচ্ছ  ? ভাবছো কি সব বলছি আমি । আচ্ছা বলতো সমাজ সত্যি কি তুমি অবাক হলে ? নাকি আমার পরিণতিতে তুমি খুশি হলে ? তোমার দেওয়া তকমা বহন করলাম আজ । এখন আর কোনো সম্পর্ক আমায় স্পর্শ করে না । শুধু কি আমি তোমার রাজত্বে আমরা মেয়েরা সত্যি এক একটা বেশ্যা । বেশ্যা সম্পর্কে , বেশ্যা প্রয়োজনে , বেশ্যা শরীরে , বেশ্যা মনে । একটা নাম ছিল আমার,পরিণীতা । পরিণীতা শুধু পরিচয়হীনা মেয়েই থেকে গেলো । আমার প্রথম বেশ্যা হাওয়া বাবার কাছে । সন্তানের অপূর্ণ ইচ্ছা দীর্ঘদিন পর মেটায় বাবার কাছে আমি হয়ে উঠলাম মায়ের বেশ্যাপনার ফসল । আব্বাসকে ভালোবেসে ঘর ছেড়ে ছিলাম আমি । আর আব্বাস ভরা পেটে আমাকেই ছেড়ে দিল ।শরীর নামক যন্ত্র যে শুধুমাত্র চাহিদার মেটানোর জন্য সেদিন এই বেশ্যা বুঝে গেলো । ভরা পেটও তখন তোমার কাছে বেশ্যা। বাঁচতে চাইলো না আমার সন্তান। সমাজ তোমার রাজত্বে থেকে অনেক আগে মুখ ফুরিয়ে নিল সে । ধর্ষিত হলাম আমি । তোমার রাজত্বের কাপুরুষ সৈন্যরা ধর্ষণ করলো আমায়। তখনও আমি তোমার কাছে বেশ্যা । এই রেড লাইটের আলো , এই ভাঙ্গা ল্যাম্পপোস্ট, সরু গলিপথ আজ আর আমায় বেশ্যা বলে না । সমাজ সত্যি আজ আমি প্রকৃতই এক বেশ্যা ।

-মহুয়া চক্রবর্তী

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *